Daughter-400x237প্রেমিকের সাথে যৌনকর্মের জন্য কনডম চুরির খবর পুলিশের কাছ থেকে জানতে পেরে ১৯ বছরের মেয়েকে নিজ হাতে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে তার বাবা।

মেয়েটির নাম লারিব। সে একজন দন্ত চিকিৎসক। হত্যার পর তার বাবা আসাদুল্লাহ খান (৫১) এবং তার মা সাজিয়া (৪১) তাকে জামাকাপড় পরায় এবং একটি হুইল চেয়ারে করে তাদের অ্যাপার্টমেন্ট থেকে গাড়িতে নিয়ে যায়। গাড়িতে করে শহরের একটি বাধের উপর নিয়ে সেখান থেকে পানিতে ফেলে দেয় লাশ।

আসাদুল্লাহ খান এবং তার স্ত্রী সাজিয়া জন্মসূত্রে পাকিস্তানি। তারা জার্মানিতে বসবাস করে আসছিল। আদালতে তাদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়েছে তাদের ছোট মেয়ে নিদা। সে জানায় তার বাবা এবং মা দুইজনেই তার বোনকে মারার ব্যাপারে কঠোর অবস্থানে ছিল।

এ বিষয়ে সাজিয়া বলেছে, হত্যার রাতে লারিব তার বাবার সাথে ঝগড়া করেছিল এবং তার বাবাকে আঘাত করেছে।

সে আরও বলে, লারিব কয়েক রাত বাড়ির বাইরে ছিল এবং স্কার্ফ পরাও বন্ধ করে দিয়েছিল। কয়েকদিন পর আমরা একটি চিঠি পাই। এতে পুলিশ লিখেছিল তারা আমার মেয়েকে কনডম চুরির সময় গ্রেফতার করেছে।

লারিবের বাবা আসাদুল্লাহ বলেছে, সে তার মেয়েকে ভালোবাসত। মামালাটি বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে।

ডেইলি মেইল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *