৩০ এপ্রিলে নিবন্ধন না করলে সিম বন্ধ

tarana1-400x266সিমের সংখ্যা ১৩ কোটির উপরে। টার্গেট ৩০ শে এপ্রিল। এখনো অনেক সিম নিবন্ধন হয়নি তথ্যের এ পরিসংখ্যানে স্পষ্ট মন্ত্রণালয়ের বেধে দেয়া সময়ে শেষ হচ্ছে না বহুল আলোচিত বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন। এদিকে সিম নিবন্ধন নিয়ে সোচ্চার ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম । এ উদ্যোগ বাস্তবায়নে মোবাইলের সিম নিবন্ধনের জন্য গ্রাহকদের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বলেছেন, ৩০ এপ্রিল সিম নিবন্ধনের শেষ দিন। নিবন্ধনের সময় বৃদ্ধির কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। এর মধ্যে নিবন্ধন না করলে সিম বন্ধ হয়ে যাবে।

মঙ্গলবার বিকেলে রংপুর টেলিফোন ভবন ও প্রধান ডাকঘর পরিদর্শনে টেলিফোন ভবন মিলনায়তনে সাংবাদিকদের এ সিদ্ধান্তের কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী ।

তিনি বলেন, টেলিটকের ১০ মাসে ১০ লাখ গ্রাহক বৃদ্ধি পেয়েছে। নেটওয়ার্ক বাড়ানোর জন্য ৬০০ কোটি টাকার পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, পিছিয়ে পড়া বিটিসিএল ফোন লাভজনক করতে দেশের জেলা-উপজেলায় অপটিক্যাল ফাইবারের কাজ জুন মাসের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে। এতে করে উচ্চক্ষমতার ইন্টারনেট গ্রামগঞ্জের মানুষ ব্যবহার করতে পারবে। তখন এ প্রতিষ্ঠান লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হবে।

এ সময় প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন বিটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম ফখরুদ্দীন আহমেদ চৌধুরী, মহাব্যবস্থাপক মোয়াজ্জেম হোসেন ভূঁইয়া, রংপুর বিভাগীয় টেলিযোগাযোগ অঞ্চলের বিভাগীয় প্রকৌশলী মোস্তাফি মাহমুদ শাহ, ডাকঘরের মহাব্যবস্থাপক রাকিব হোসেন চৌধুরী প্রমুখ।

উল্লেখ,ডিজিটাল পদ্ধতিতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য যে ক’টি পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়, তার মধ্যে অন্যতম হলো বায়োমেট্টিক পদ্ধতি। এ পদ্ধতিতে ব্যবহারকারীর আঙ্গুলের ছাপ, রেটিনা কিংবা কণ্ঠস্বরের মাধ্যমে পরিচয় নিশ্চিত করা হয়ে থাকে। তবে এ তিনটি পদ্ধতির মধ্যে বহুল ব্যবহৃত পদ্ধতি হলো আঙ্গুলের ছাপ।

আর তাই মোবাইল সংযোগ নিবন্ধনের ক্ষেত্রেও আঙ্গুলের ছাপ ব্যবহার করার মাধ্যমে ব্যবহারকারীর সঠিক পরিচয় নিশ্চিত করা সম্ভব। এ লক্ষ্যে প্রথম দেশ হিসেবে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন কার্যক্রম হাতে নেয় পাকিস্তান। পরবর্তীতে একই কার্যক্রম শুরু হয় বাংলাদেশে। চলতি বছরের শুরুর দিকে সৌদি আরবে শুরু হয় বায়োমেট্রিক সিম নিবন্ধন কার্যক্রম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *