ব্রিটেনে খ্রিস্টানরা সংখ্যালঘু!

01_24024000_35aba3_2885085aমৌলি নূর : চার্চের আসনগুলোতে অনেক দিন ধরেই ধর্মপালনকারীদের সংখ্যা কমে আসছিল। ইউরোপের অনেক দেশে এ সংকটে অনেক চার্চ বন্ধ হয়ে গেছে সে খবরও পুরোনো। কিন্তু ব্রিটেনের মত দেশে এখন ৪৮ ভাগ মানুষ বলছে তারা আদতে কোনো ধর্মই আর অনুসরণ করছেন না। বাদবাকি এ্যাঞ্জলিকান, ক্যাথলিক ও অন্যান্য খ্রিস্টান মিলে এ ধর্মের অনুসারির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৩ দশমিক ৮ ভাগ। ঈশ্বরে বিশ্বাস করেন না এমন ব্রিটিশ নাগরিকদের সংখ্যা ২০১৪ সাল থেকে শুধু বৃদ্ধি পায়নি বরং ধর্মে বিশ্বাসী নয় এমন লোকের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে যায় ২০১১ সালেই।

এখন চার্চে যে শুধু লোকজন যাচ্ছে না তা নয় এমনকি উপাসক পর্যন্ত পাওয়া যাচ্ছে না। আমরা কোনো ধর্ম অনুসরণ করছি না এমন বক্তব্য অনায়াসে করছেন ব্রিটেনের অনেক নাগরিক। চার্চ অব ইংল্যান্ডের সেই অঙ্ঘনীয় আদেশ যা ছিল প্রতিজন অন্তত ১২ জন অনুসারিকে হাজির করবেন তাদের কাউকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। স্টিফেন বেলিভ্যান্ট পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে বলছেন, গত তিন দশক ধরে অনেকে খ্রিস্টান পরিবারে বেড়ে উঠলেও এখন আর তারা নিজেদের খ্রিস্টান মনে করছেন না। নিয়মিত তো দূরের কথা তারা যেন চার্চে রোববারের প্রার্থনায় যোগ দিতে ভুলেই গেছে। ওয়েলস’এর মত স্থানেও সাড়ে ৫৯ ভাগ বাসিন্দা স্পষ্ট করে বলছে তাদের কোনো ধর্ম নেই। লন্ডনে ধর্ম মানেন না এমন ব্রিটিশ নাগরিকের সংখ্যা ৪০ ভাগে নেমে এসেছে। যা মুসলমান, হিন্দু ও ইহুদিদের চেয়ে কমে আসছে। সান থেকে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *