বাংলাদেশের মানুষের সম্পদ বেড়েছে

8569399886_76f2d3b55f_bরিবাতুল ইসলাম : বাংলাদেশের প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তিদের হাতে থাকা সম্পদের পরিমাণ এখন ২৫৮ বিলিয়ন ডলার বা ২৫ হাজার ৮০০ কোটি ডলার। টাকার অঙ্কে তা ২০ লাখ ৩৮ হাজার ২০০ কোটি টাকা।

বাংলাদেশের মানুষের সম্পদ বৃদ্ধির এই তথ্য দিয়েছে সুইজারল্যান্ডভিত্তিক আর্থিক সেবা প্রতিষ্ঠান ক্রেডিট সুইসের গবেষণা প্রতিষ্ঠান রিসার্চ ইনস্টিটিউট। প্রতিষ্ঠানটি প্রতিবছর বিশ্বের সম্পদের তথ্য নিয়ে ওয়ার্ল্ড ওয়েলথ রিপোর্ট তৈরি করে। ২০১৬ সালের প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে গত বুধবার।

সম্পদের এই হিসাব চলতি ২০১৬ সালের মাঝামাঝি সময়ের। আর ঠিক এক বছর আগে বাংলাদেশের মানুষের মোট সম্পদ ছিল ২৩৭ বিলিয়ন বা ২৩ হাজার ৭০০ কোটি ডলার। ৭৯ টাকা ডলার ধরলে তা ১৮ লাখ ৭২ হাজার ৩০০ কোটি টাকা।

প্রতিবেদনে ২০০০ সাল থেকে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশের সম্পদের বিবরণ দেওয়া হয়েছে। ২০০০ সালে বাংলাদেশের মানুষের হাতে ছিল ৭৮ বিলিয়ন বা ৭ হাজার ৮০০ কোটি ডলারের সমপরিমাণ সম্পদ। প্রতিবেদনে মাথাপিছু সম্পদের হিসাবও দেওয়া হয়েছে। যেমন ১৬ বছর আগে বাংলাদেশে একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের মাথাপিছু সম্পদ ছিল ১ হাজার ৬৯ ডলার বা ৮৪ হাজার ৪৫১ টাকা। আর এখন তা বেড়ে হয়েছে ২ হাজার ৩৪৭ ডলার (১ লাখ ৮৫ হাজার ৪১৩ টাকা)। আর এর মধ্যে আর্থিক সম্পদের পরিমাণ ৮৪৮ ডলার, স্থাবর সম্পদের পরিমাণ ১ হাজার ৫৬৭ ডলার। পাশাপাশি বাংলাদেশের একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের গড়ে মাথাপিছু দেনা হচ্ছে ৬৮ ডলার।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৫ সালে এখানকার একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের মাথাপিছু ২ হাজার ২০১ ডলারের সমপরিমাণ সম্পদ ছিল। এর মধ্যে আর্থিক সম্পদ ৭৯৫ ডলার, স্থাবর সম্পদ ১ হাজার ৪৭০ ডলার এবং মাথাপিছু দেনা ছিল ৬৪ ডলার।

মানুষের সম্পদ বাড়লেও বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশকে দরিদ্র দেশ হিসেবেই বিবেচনা করা হয়েছে প্রতিবেদনটিতে। যেমন ২০০০ সালে বিশ্বের মোট প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তিদের মধ্যে বাংলাদেশিদের হার ছিল ২ শতাংশ, কিন্তু তাদের হাতে থাকা সম্পদের পরিমাণ ছিল বৈশ্বিক সম্পদের শূন্য দশমিক ১ শতাংশেরও কম। ১৬ বছর পরও তা-ই আছে। যদিও প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২ দশমিক ৩ শতাংশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *